এইচআরডব্লিউর অভিযোগের বিচার বিভাগীয় তদন্ত চায় বিএনপি

Published 06/07/2012 by idealcollect

 

 

 হিউম্যান রাইটস ওয়াচের (এইচআরডব্লিউ) প্রতিবেদনের সত্যতা যাচাইয়ে ‘বিচার বিভাগীয়’ অথবা ‘গণতদন্ত কমিটি’ গঠনের দাবি জানিয়েছেন বিএনপি।

শুক্রবার সকালে এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আ স ম হান্নান শাহ বলেন, “কিছুদিন আগে আমি কাশিমপুর কারাগারে ছিলাম। সেখানে স্বচক্ষে দেখেছি, কীভাবে বিডিআর জওয়ানদের ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়ে রাখা হয়েছে।”

“বিডিআর হত্যাকাণ্ডের বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যান রাইটস ওয়াচের প্রকাশিত প্রতিবেদন সরকার প্রত্যাখান করেছে। কিন্তু আমি নিজের চোখে যা দেখেছি, তা সরকারের বক্তব্যের বিপরীত”, যোগ করেন তিনি।

হান্নান শাহ বলেন, “সরকারকে বলব, একটি পাবলিক ইনকোয়ারি কমিটি অথবা জুডিশিয়াল কমিটি গঠন করুন।”

নিউ ইয়র্কভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বুধবার ওই প্রতিবেদনে বলে, বিডিআর বিদ্রোহে অভিযুক্তদের ‘গণ বিচার’ প্রক্রিয়ায় ‘গলদ’ রয়েছে। এ কারণে এই বিচার ‘এখনই’ স্থগিত করার আহ্বান জানায় তারা।

২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় সন্দেহভাজন ও অভিযুক্তদের ওপর নির্যাতন চালানো হচ্ছে অভিযোগ করে এইচআরডব্লিউ বলেছে, এতে র‌্যাব সদস্যদের জড়িত থাকার প্রমাণ তাদের হাতে রয়েছে।

এ কারণে র‌্যাব ভেঙে দিয়ে একটি নতুন ‘বেসামরিক’ বাহিনী গড়ে তোলার সুপারিশ করা হয় তাদের প্রতিবেদনে।

সরকারের আইন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বৃহস্পতিবার ওই প্রতিবেদনকে ‘মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’ উল্লেখ করে তা প্রত্যাখান করেন।

শুক্রবার গণমাধ্যমে পাঠানো স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের এক ‘প্রতিবাদলিপিতে’ বলা হয়, এইচআরডব্লিউর ওই প্রতিবেদন এবং বুধবার সংবাদ সম্মেলনে তাদের উপস্থাপিত অভিযোগ ‘আন্তজার্তিক ষড়যন্ত্র ও অপপ্রচারের’ অংশ বলেই সরকার মনে করে।

তবে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির মানববন্ধনে হান্নান শাহ অভিযোগ করেন, কেবল বিডিআর সদস্য নয়, সারাদেশে বিরোধী দলের ‘হাজার হাজার’ নেতা-কর্মীকে কারাগারে আটকে রেখে ‘পদে পদে’ মানবাধিকার লঙ্ঘন করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, “সরকার সর্বক্ষেত্রে ব্যর্থ হয়ে বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তার ও মিথ্যা মামলা দিচ্ছে।”

পদ্মা সেতু

পদ্মাসেতু নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের বক্তব্যের সমালোচনা করে হান্নান শাহ বলেন, “বিশ্বব্যাংক যদি খারাপই হয়ে থাকে তাহলে আবার তাদের সঙ্গে কেন আপনারা আলোচনা করতে চান? আমরা মনে করি, সংসদে প্রধানমন্ত্রী যে বক্তব্য দিয়েছেন, তা আওয়ামী লীগের বক্তব্য, দেশের মানুষের বক্তব্য নয়। কারণ দেশের জনগণ সহজ শর্তে পদ্মাসেতু নির্মাণ দেখতে চায়।”

দুর্নীতির অভিযোগে বিশ্ব ব্যাংক পদ্মা সেতু প্রকল্পের ঋণ বাতিল করার পর অর্থমন্ত্রী জাতীয় সংসদে জানান, বিষয়টি নিয়ে তারা যে কোনো মুহূর্তে বিশ্ব ব্যাংকের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন।

পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংসদে বলেন, বাংলাদেশ প্রয়োজনে নিজেদের অর্থায়নেই এ সেতু নির্মাণ করবে।

এ প্রসঙ্গ টেনে হান্নান শাহ বলেন, “সরকার এখন মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে ঋণ নেয়ার চেষ্টা করছে। তাদের উদ্দেশ্য, বিশেষ তদবিরকারকদের মাধ্যমে ঋণ নিলে কমিশন হাতিয়ে নেওয়া যাবে।”

দেশের সবচেয়ে বড় এ নির্মাণ প্রকল্পে দুর্নীতির সঙ্গে সরকারের মন্ত্রী, সংশ্লিষ্ট আমলাসহ শীর্ষ পর্যায়ের ‘অনেকে’ জড়িত দাবি করে এই বিএনপি নেতা বলেন, তার দল ভবিষ্যতে ক্ষমতায় গেলে দোষীদের বিচার করবে।

“পদ্মাসেতু দক্ষিণ বাংলার মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি। এই সেতু নির্মাণের আগেই দুর্নীতি হয়েছে। সরকারের পতন হলে পদ্মানদীর ওই পারের মানুষ তাদের পালাতে দেবে না। রাজনৈতিকভাবে এদের মৃত্যু ঘটবে।”

‘পদ্মাসেতু দুর্নীতির সঙ্গে জড়িতদের বিচার ও নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন’ দাবিতে এ মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন জাগপা প্রধান শফিউল আলম প্রধান। অন্যদের মধ্যে জাগপা সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমানও বক্তব্য দেন।

News From-বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

w

Connecting to %s

%d bloggers like this: